হিলিতে ‘হাসপাতালে চিকিৎসা’ না পেয়ে রোগীর আত্মহত্যা

হিলিতে বুধবার( ২০ মে) সকালে চিকিৎসা না পেয়ে গলায় ফাঁস দিয়ে এক নারী আত্মহত্যা করেছে। ব্যথার যন্ত্রণায় চিকিৎসা না পেয়ে আত্মহত্যা করেছে বলে অভিযোগ হাসপাতালে আত্মহত্যাকারী নারীর পাশের রোগীদের।

তবে চিকিৎসা সেবায় কোনো ঘাটতি ছিল না বলে দাবি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স কর্মকর্তার।

হাসপাতালের কয়েকজন প্রত্যক্ষদর্শী রোগী জানান, ওই রোগী ভর্তি হবার পর থেকে করোনা সন্দেহে তার কাছে কোনো নার্স কিংবা ডাক্তার কম আসতো। আমরাই তার কাছে গিয়ে একটু সেবা দিতাম আমাদেরও নার্সরা তার কাছে যেতে নিষেধ করত।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্মকর্তা তৌহিদ জানান, গেলো সোমবার উপজেলার হাকিমপুর সরকারি কলেজের সামনে রাস্তার পাশে রক্ত বমি ও গলা ব্যথায় সজনী (৪০) নামে এক নারী ছটপট করছিল।করোনা সন্দেহে তার পাশে কেউ না গিয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে খবর দেন। এরপর ইউএনও তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করান। সে কুষ্টিয়ার মাঝপাড়া এলাকার আব্বাসের স্ত্রী।

পরে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ওই নারী আজ বুধবার সকালে হাসপাতালের মহিলা ওয়ার্ডের বাথরুমে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে।

হাকিমপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুর রাফিউল আলম জানান, আমি ওই নারীকে চিকিৎসার জন্য উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করাই। আজ সকালে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা আমাকে ফোনে জানিয়েছে ওই নারী গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *