বিশ্বে করোনায় মৃতের সংখ্যা তিন লাখ ছাড়ালো

বিশ্বে করোনায় মৃতের সংখ্যা ছাড়ালো তিন লাখ। প্রথম ১ হাজার মৃত্যুতে সময় লেগেছিলো একমাস। পরবর্তি তিন মাসে সেই সংখ্যা তিন লাখ। এর মধ্যে গেলো ১৯ দিনে প্রাণ গেছে এক লাখের বেশি মানুষের। মোট মৃত্যুর ৮০ ভাগের বেশি ইউরোপ আমেরিকায়। টানা লকডাউন আর নানা সতর্কতার পরও ঠেকানো যাচ্ছে না প্রাণহানি।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, করোনার ভয়াবহতা ঠেকাতে এই মুহূর্তে শিথিলতার কোন সুযোগ নেই, বাড়াতে হবে প্রস্তুতি।

বিশ্ব করোনাভাইরাসে ১১ জানুয়ারি প্রথম মৃত্যু দেখার পর ক্রমেই বাড়তে থাকে মৃত্যুর মিছিল। উৎপত্তিস্থল উহানে ব্যাপক মাত্রায় মহামারির বিস্তারও শুরু হয় তখন থেকে। তবে বিশ্বজুড়ে ভাইরাসের ভয়াবহতা তীব্র আকার ধারণ করে মার্চের শেষ দিকে।

করোনায় মৃতের সংখ্যা হাজার ছাড়াতে সময় লেগেছিলো এক মাস। অথচ এপ্রিলজুড়ে দিনে ৭ হাজারের বেশি মৃত্যু দেখেছে বিশ্ব। মে মাসে, সেই গড় কিছুটা কমলেও, মাত্র ১৯ দিনে আরো এক লাখ প্রাণ কেড়ে নিলো কোভিড নাইনটিন।

করোনায় মোট প্রাণহানির ৮০ শতাংশের বেশি ইউরোপ আমেরিকায়। উৎপত্তিস্থল চীন হলেও এশিয়াতে এ হার মাত্র ৭ দশমিক ৮০ শতাংশ। গেলো কয়েকদিনে ভয়াবহতা বাড়ছে লাতিন আমেরিকায়।

অদৃশ্য এক ভাইরাসের নজিরবিহীন তাণ্ডবের মধ্যে সবারই প্রশ্ন, আর কত প্রাণ নিয়ে থামবে করোনা। যার জবাবে লম্বা সময় ধরে লড়াইয়ের পরামর্শ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার।

সংস্থাটির প্রধান ড. হ্যান্স ক্লুগ এর মতে, এখন আরও প্রস্তুতি নিতে হবে। তিনি বলেন, করোনা নিঃসন্দেহে একটি শক্তিধর ভাইরাস। দ্রুত এটি বিদায় নেবে সে সম্ভাবনাও নেই। এ সংকট মোকাবেলায় তাই স্বাস্থ্য ব্যবস্থার সক্ষমতা বাড়ানোর বিকল্প নেই।

মৃত্যুর সংখ্যা বিবেচনায় সবশেষ ভাইরাসের বড় প্রকোপ হয় ৫০ ও ৬০ এর দশকে। এশিয়ান ফ্লু আর হংকং ফ্লুতে ১০ লাখ করে প্রাণহানি দেখে বিশ্ব। তবে বিস্তারের ধরন আর ভয়াবহতার দিক দিয়ে করোনার তুলনা চলছে শতবছর আগের স্প্যানিশ ফ্লুর সাথে। যে মহামারি কেড়ে নেয় ৫ কোটির বেশি প্রাণ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *